একমাত্র মার্ক জুকারবার্গ ছাড়া সমস্ত টেক ফাউন্ডাররা হলো ব্যর্থ, বিস্তারিত জানুন

মার্ক জুকারবার্গ দিন দিন শুধু একজন ভাল ব্যাবসায়ী হয়ে উঠছেন তাই নয় বরং তার নামের পাশে একের পর এক পালক জুড়তেই আছে

0
81

বিশ্বের জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া কোম্পানি ‘ফেসবুক’-র  প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ ছাড়া অন্য কোনো টেক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ভাল ব্যবসায়ী হয়ে উঠতে পারেননি।এইসমস্ত টেক প্রতিষ্ঠাতা শুরুতে ব্যবসা শুরু করার পরও কোম্পানিটিকে হয়  বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিল নতুবা পদ থেকে পদত্যাগ করতে হয়েছিল।কিন্তু একমাত্র মার্ক জুকারবার্গ দিন দিন শুধু একজন ভাল ব্যাবসায়ী হয়ে উঠছেন তাই নয় বরং তার নামের পাশে একের পর এক পালক জুড়তেই আছে।

মার্ক জুকারবার্গ, যিনি 14 বছর আগে ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, কখনোই ভাবেননি যে তার স্টার্টআপ একদিন এমন জনপ্রিয় হয়ে উঠবে যে বিশ্বের প্রায় 2 বিলিয়ন মানুষ এটি প্রতিদিন ব্যবহার করবে।মার্ক জুকারবার্গের পাশাপাশি অন্যান্য অনেক টেক প্রতিষ্ঠাতাও আছেন যারা তাদের শুরুটা করেছিলেন কিন্তু তারা ভাল পেশাদার প্রমাণিত হননি।তেসলা-র প্রতিষ্ঠাতা Elon Musk,উবের-র প্রতিষ্ঠাতা Travis Kalanick,এমনকি ভারতীয় কোম্পানি ফ্লিপকার্ট-র প্রতিষ্ঠাতা শচীন ও বিন্নি বনসাল কোম্পানিকে ভালো অবস্থায় নিয়ে গেলেও শেষে পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন।

মার্ক জুকারবার্গের ব্যবসায়িক দৃষ্টি :

মার্ক জুকারবার্গ ক্রমাগত ব্যবহারকারীদের পছন্দ অনুসারে ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম পরিবর্তন করে বাজারে টিকে রয়েছে।আজ ফেসবুকের ব্যবসায়িক মূলধন 400 বিলিয়ন মার্কিন ডলার।এর জন্য সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে মার্ক জুকারবার্গের ব্যবসায়িক দৃষ্টিভঙ্গি।ফেসবুক সাধারণ মানুষও ব্যবহার করতে পারে।আর সব ধরণের মানুষ ব্যবহার করতে পারে বলেই দিন দিন ফেসবুক আরো জনপ্রিয়তা লাভ করছে।

প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানিকে অধিগ্রহণ :

ফেসবুকের হোয়াটসঅ্যাপ এবং ইনস্টাগ্রাম অধিগ্রহণ মার্ক জুকারবার্গের একটি মাস্টারস্ট্রোক ছিল।আসন্ন দিনগুলিতে মার্ক জুকারবার্গ এভাবেই ফেসবুকের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানি এবং অ্যাপ্লিকেশনগুলি কিনে নিয়ে একাই রাজ্ করবে।মার্ক জুকারবার্গের এই দৃষ্টিভঙ্গি এখন পর্যন্ত তার জন্য কাজ করে চলেছে। হোয়াটসঅ্যাপ এবং ইনস্টাগ্রামের জনপ্রিয়তা বিবেচনা করে কোম্পানি এগুলোকে কিনে নিয়েছে। এর ফলস্বরূপ ফেসবুক সম্প্রসারণে আর কোন বাধা থাকলো না।

পড়ুন : কর্মচারীদের অ্যাপল ফোন ব্যবহার বন্ধের নির্দেশ দিলেন মার্ক জুকারবার্গ

শেয়ার ভাগ :

ফেসবুক দ্বিস্তরীয় শেয়ার নীতিতে বিভক্ত। মার্ক জুকারবার্গ গুগলের মতো দ্বিস্তরীয় শেয়ার নীতি তৈরি করেছেন। প্রথম স্তরে সাধারণ মানুষ বা ব্যবহারকারীদের জন্য, দ্বিতীয় স্তরটি ফেসবুকের কর্মীদের জন্য।ফেসবুকের কর্মচারী ছাড়াও যদি অন্য কোনও ব্যক্তি শেয়ার কিনে থাকে তবে তার কাছে ভোটদান অধিকার নেই। কোনও সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা বা সিইও কে শুধুমাত্র ভোটিংয়ের অধিকারের কারণে অপসারণ করা যেতে পারে।এই মুহুর্তে মার্ক জুকারবার্গের কাছে কোম্পানির 60% ভোটিং অধিকার রয়েছে, যা কোম্পানির জন্য একটি নিরাপত্তা বৃত্ত তৈরী করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here