আসতে চলেছে eSIM, এর সুবিধা কি এবং এটি কিভাবে ব্যবহার করবেন

ই-সিম কি এবং এর সুবিধা কি সে সম্পকে জানাবো

0
940

আমরা জানি সিম কার্ড ছাড়া কোন ফোন ব্যবহার করা যায় না।সিম কার্ডের অর্থ হলো সাবস্ক্রাইবার আইডেন্টিটি মডিউল।এটি একটি ছোট চিপ যা স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর তথ্য জমা রাখে।গত 3 থেকে 5 বছরে সিম কার্ডের আকার ক্রমশ ছোট হয়ে গেছে।আমরা কিছু বছর ধরে মিনি সিম ব্যবহার করা শুরু করেছিলাম।এর পর মাইক্রো ও ন্যানো সিমের জনপ্রিয়তা বাড়তে শুরু করেছিল।কিন্তু বর্তমানে সবাই eSIM ব্যবহারের জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছে।আইফোন এক্সএস লঞ্চ হওয়ার পর মানুষ ই-সিম সম্পর্কে  জানতে শুরু করেছে।আজ আমরা আপনাকে ই-সিম কি এবং এর সুবিধা কি সে সম্পকে জানাবো।

eSIM কি ?

eSIM কে এমবেডেড সাবস্ক্রাইবার আইডেন্টিটি মডিউল বলা হয়।ই-সিম প্রযুক্তি সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে কাজ করে। এর আগে এই প্রযুক্তিটি কেবল স্মার্টওয়াচে ব্যবহার করা হয়েছিল।কিন্তু এই প্রযুক্তি আইফোনের নতুন মডেলের সাথে চালু করা হয়েছে। ব্যবহারকারীরা এর ফলে এক অপারেটর থেকে অন্য অপারেটরে খুব সহজে যেতে পারবে।

eSIM এর সুবিধা :

অধিক সুরক্ষিত :

eSIM স্মার্টফোনে এমবেড করা হয়।অর্থাৎ একে ফোন থেকে পৃথক করা যাবে না। এর মানে হল যে আপনার সিম কার্ড কখনও হারিয়ে যাবে না।আবার আমরা জানি প্রতিটি মোবাইলে ভিন্ন সাইজের সিম স্লট থাকে তবে eSIM থাকলে এসম্পর্কে চিন্তা করার প্রয়োজন নেই।

ভ্রমণকারীদের সুবিধা:

ই-সিম এর ফলে সব চেয়ে সুবিধা ভ্রমণকারীদের হবে।অন্য দেশে ঘুরতে যাওয়ার জন্য স্ট্যান্ডার্ড সিম কার্ড আপনার নাম্বার ব্যবহার করার অনুমতি দেয়না।কিন্তু আপনি আপনার ফোনে রোমিং ই-সিম এমবেড করতে পারবেন।এর জন্য আপনাকে কোনো রোমিং চার্জও দিতে হবেনা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যে ই-সিম আপনাকে অন্য দেশে ভ্রমণ করার সময় এটি ব্যবহার করার অনুমতি দেবে।

জায়গা বাড়বে:

স্মার্টফোন কোম্পানি সিমের আকার ছোটো করছে যাতে ফোনের ভিতরে জায়গা বাড়ে।আবার যদি সিম কার্ড স্লটটি ফোন থেকে সরানো হয় তবে কোম্পানিগুলি অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদানগুলির জন্য এই স্থানটি ব্যবহার করতে সক্ষম হবে।যদি সিম কার্ড স্লটটি ফোনে না থাকে তাহলে ফোনে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের সুবিধা হবে।

পড়ুন : গুগল ড্রাইভে হোয়াটসঅ্যাপ ডেটা ব্যাকআপ কিভাবে নেবেন, এই স্টেপগুলো অনুসরণ করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here