জিও সিমের ইন্টারনেট স্পিড কিভাবে বাড়াবেন? 100% ট্রিক

0
4264

রিলায়েন্স জিও যখন প্রথম প্রিভিউ অফারের সাথে ভারতের বাজারে এসেছিলো তখন তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো দ্রুততম ইন্টারনেট পরিষেবা দেওয়ার। এই প্রিভিউ অফারে বিনামূল্যে ভয়েস কল, ডেটা ও এসএমএস এর সুবিধা দিয়ে জিও গ্রাহকদের মন এমনভাবে জয় করে নিয়েছিল যে, অনেকে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে সেইসময় এই সিম কার্ড কিনেছে। কিন্তু দিন যত এগিয়েছে এবং গ্রাহক যত বেড়েছে, জিও ও তাদের প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ হয়েছে।

প্রিভিউ অফারে যেখানে জিও 30Mbps থেকে 50Mbps স্পিড দিতো সেখানে পরে তা কমে দাঁড়ায় 6Mbps থেকে 8Mbps । এখন পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে, সন্ধ্যা হলে 4G এর বদলে 2G স্পিড পাওয়া যায়।

এর পিছনে বিভিন্ন কারণ হতে পারে। অনেকে অভিযোগ করেন কম টাওয়ার থাকার কারণে তারা ইন্টারনেট স্পিড কম পাচ্ছে। তবে মনে রাখবেন শুধু টাওয়ার বসানোই নয়, আপনার ফোন ও কম ইন্টারনেট স্পিডের জন্য দায়ী থাকতে পারে। আবার কোনো এলাকায় যত গ্রাহক থাকা দরকার তার বেশি হলেও ইন্টারনেট স্পিড কম হয়।

কিন্তু এতো কিছু জানার পরও আমরা সবাই চাই যেভাবেই হোক ইন্টারনেট স্পিড বাড়াতে। আর এই কারণেই আমরা ইউটিউব থেকে গুগলে বিভিন্ন টিপস এবং ট্রিকস খুঁজতে থাকি। যেগুলোর বেশিরভাগই কাজ করেনা। আজও আমরা এই পোস্টে আপনাদেরকে কিছু টিপস এবং ট্রিকস জানাবো। কিন্তু তার আগে LTE ব্যান্ড সম্পর্কে আপনাদেরকে বলবো।

4G ব্যান্ড কি ?

এককথায় ব্যান্ড হলো একটি নেটওয়ার্ক ফ্রিকোয়েন্সি যা সার্ভিস প্রোভাইডার অফার করে। এয়ারটেল 4G পরিষেবার জন্য ব্যান্ড 40 (2300MHz), ভোডাফোন ব্যান্ড 5 (850Mhz) এবং জিও ব্যান্ড 3, ব্যান্ড 5, ব্যান্ড 40 অফার করে থাকে।

এখানে ব্যান্ড কিভাবে কাজ করে সেটা জেনে নেই।

ভালো নেটওয়ার্কের জন্য Band 5 > Band 3 > Band 40 ।

ভালো স্পিডের জন্য Band 40 > Band 3 > Band 5 ।

অর্থাৎ আপনার যদি ভালো নেটওয়ার্ক দরকার হয় তবে Band 5 ব্যবহার করা উচিত। যদিও এখানে ইন্টারনেট স্পিড সব থেকে কম। আবার Band 40 সবচেয়ে ভালো ইন্টারনেট স্পিড দিলেও এর কভারেজ খুব কম।

এই কারণে আপনি ব্যান্ড নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে জিও-র ইন্টারনেট স্পিড বাড়াতে পারেন। তবে এই কাজটি করা সম্পূর্ণ আপনার ব্যাক্তিগত। আমরা কোনোভাবেই এই কাজ করার জন্য প্ররোচিত করছিনা।

প্রথম পদ্ধতি :

ভালো স্পিডের জন্য Band 40 কিভাবে সিলেক্ট করবেন :

– প্রথমে আপনার ফোন থেকে ডায়েল করুন *#*#4636#*#* ।

– এরপর ফোন সম্পর্কিত তথ্য দিন।

– এরপর “Set preferred network type” নির্বাচন করুন ।

– এরপর LTE Only বেছে নিন।

কোয়ালকম প্রসেসরের জন্য :

– প্লে স্টোর থেকে Shortcut Master (Lite) ডাউনলোড করুন ।

– মেনু > সার্চ।

– এখানে সার্চ করুন “Service Menu” বা “Engineering Mode” ।

– এবার LTE বদলে নিন।

মিডিয়াটেক প্রসেসরের জন্য :

প্লে স্টোর থেকে এমটি কে ইঞ্জিনিয়ারিং মোড ইনস্টল করুন> খুলুন এবং অ্যাপ্লিকেশনটি  চালান> তারপর ‘MTK সেটিংস> ‘ব্যান্ডমোড’ নির্বাচন করুন> সিম স্লট নির্বাচন করুন যেখানে আপনি আপনার জিও সিম আছে > ‘LTE মোড নির্বাচন করুন’> হাই স্পীডের জন্য ব্যান্ড 40 নির্বাচন করুন এবং সেরা কভারেজের জন্য ব্যান্ড 5 নির্বাচন করুন।

দ্বিতীয় পদ্ধতি :

APN পরিবর্তন করুন : ( সেটিং> সিম কার্ড & মোবাইল নেটওয়ার্ক > সিম বাছুন > এক্সেস পয়েন্ট নেম )

(APN পরিবর্তন করার আগে অবশ্যই আগের সেটিং লিখে রাখুন)

নিচের পদ্ধতি অনুসারে পরিবর্তন করুন

– Name – RJio

– APN – jionet

– APN Type – Default

– Proxy – No changes

– Port – No changes

– Username – No changes

– Password – No changes

– Server – www.google.com

– MMSC – No changes

– MMS proxy – No changes

– MMS port – No changes

– MCC – 405

– MNC – 857 or 863 or 874

– Authentication type – No changes

– APN Protocol – Ipv4/Ipv6

তৃতীয় পদ্ধতি :

Play Store থেকে প্রথমে VPN মাস্টার বা স্ন্যাপ VPN অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন অথবা আপনি যেকোনো অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে পারেন উভয়ই একই উদ্দেশ্যে তৈরি করা> তাই অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করার পরে এটি খুলুন> তারপর অ্যাপ্লিকেশনটি খুলার পর সার্ভারটি ‘ভারত’ দেশ সেট করুন এবং এটি সংযোগ করার জন্য 15 সেকেন্ড পর্যন্ত সময় লাগবে, কখনও কখনও এটি 2-3 সেকেন্ডের মধ্যে সংযোগ করে > ভিপিএন সংযোগের পরে আপনি যে ডাউনলোডের গতি পরীক্ষা করতে পারবেন তা কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে সর্বোচ্চ গতিতে পৌঁছবে ।

পড়ুন : 4G সিম হওয়া সত্ত্বেও স্লো ইন্টারনেট, এই উপায়ে বাড়াতে পারেন ইন্টারনেট স্পিড

সব খবর পড়তে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন – এখানে ক্লিক করুন

টেক ভিডিও দেখার জন্য আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন – এখানে ক্লিক করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here