রিলায়েন্স জিও 4G VoLTE সার্ভিসের সাথে ভারতীয় টেলিকম মার্কেটে পা রেখেছিলো। টেলিকম বিশেষজ্ঞদের মতে LTE  সার্ভিসের থেকে অনেক উন্নত VoLTE। বিভিন্ন সুবিধা সহ VoLTE নেটওয়ার্কে ভয়েস কলের সময় অনেক বেশি স্পষ্টতা আসে । যার পর থেকে এয়ারটেল ও ভোডাফোন ও ভোল্টি সার্ভিস আনার চেষ্টায় ছিল। গতকাল এয়ারটেল তাদের সমস্ত সার্কেলে এই 4G VoLTE সার্ভিস নিয়ে আসলো। এরফলে রিলায়েন্স জিওর মতো এখন এয়ারটেল গ্রাহকরাও ভয়েস কল ও ডেটা একসাথে ব্যবহার করতে পারবে।
প্রসঙ্গত এয়ারটেল ২০১২ সালে সর্বপ্রথম ভারতে ৪জি সার্ভিস চালু করে। এরপর ভোডাফোন এই পরিষেবা নিয়ে আসে। তবে 4G VoLTE সার্ভিস সহ ২০১৬ সালে ভারতীয় টেলিকম মার্কেটে প্রবেশ করে রিলায়েন্স জিও। কোম্পানি সারা দেশেই এই পরিষেবা চালু করেছিল। এরপর ২০১৭ সালে এয়ারটেল ভোল্টি সার্ভিস টেস্টিং শুরু করে, যেটি কয়েকটি সার্কেলেই উপলব্ধ ছিল। এমনকি সমস্ত স্মার্টফোনেও এই পরিষেবা পাওয়া যেত না। তবে এবার ২৫০ টির বেশি স্মার্টফোনে সাপোর্ট সহ এয়ারটেল সারাদেশে এই পরিষেবা চালু করলো।
এখন থেকে এয়ারটেল গ্রাহকরা HD ভয়েস কলের আনন্দ উপভোগ করবে। এছাড়াও জিওর মতো কথা বলতে বলতেই ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে (যেটি আগে কেবল ভালো নেটওয়ার্ক কভারেজ প্রাপ্ত এলাকায় উপলব্ধ ছিল )। আগে কল করার সময় 2G বা 3G নেটওয়ার্কে পরিবর্তন হয়ে যেত। এছাড়াও এই পরিষেবায় গ্রাহকরা দ্রুত ইন্টারনেট পরিষেবা পাবে।
তবে কেবল এয়ারটেল নয়, ভোডাফোন ও বিএসএনএল ও 4G VoLTE সার্ভিসের উপর কাজ শুরু করেছে। কিছুদিন  প্রকাশিত একটি রিপোর্ট অনুযায়ী বিএসএনএল সারা দেশে VoLTE আনার জন্য পরীক্ষা শুরু করেছে। বিএসএনএলের এই পরিষেবাটি শাওমি, ভিভো, নোকিয়া, সনি এবং অন্যান্য সংস্থার ৩০ টি ডিভাইসে পরীক্ষা করা হচ্ছে।
 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here