স্মার্টফোন কোম্পানি Xiaomi এর জন্য সময়টা মোটেই ভালো যাচ্ছেনা। ২০১৭ সালে রেডমি নোট ৪ ব্লাস্ট করার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোল হতে হয়েছিল শাওমিকে। জনপ্রিয় ট্রোল পেজগুলো Mi ফোনকে কালী পটকার সাথে তুলনা করেছিল। যদিও এরপর নিজেদের ফোনের কোয়ালিটি অনেক উন্নত করে ভারতের নম্বর ওয়ান স্মার্টফোন ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছে শাওমি। কিন্তু এরপর ও মাঝে মধ্যেই শাওমির বিভিন্ন ফোন ব্লাস্ট করার ঘটনা সামনে আসছে। কিছুদিন আগেই আমরা Redmi Note 7s ফোনে আগুন ধরার খবর আপনাদেরকে জানিয়েছিলাম। এবার Redmi Note 7 Pro এর সাথেও একই ঘটনা ঘটলো।
গিজচিনার প্রতিবেদন অনুসারে, এই ঘটনাটি ঘটেছে চীনে। সেখানকার হেনান প্রদেশের বাসিন্দা গান ইউজনী বলেছেন যে, তিনি তিন মাস আগে তার বাবার জন্য একটি রেডমি নোট ৭ প্রো স্মার্টফোন কিনেছিলেন। তবে গত ২৭ নভেম্বর আচমকাই এই ফোনে আগুন ধরে যায়। তারা এই বিষয়ে কোম্পানির কাছে অভিযোগ ও করেছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউজনী-র বাবা তার ফোনটিকে লেপের উপর রেখে ভিডিও দেখছিলো। এরপর সে ভিডিও দেখতেই দেখতেই ঘুমিয়ে পড়ে।  ঘুম গাঢ় না হতে হতেই সে কিছু পোড়ার গন্ধ পায়। হুড়মুড়িয়ে উঠে সে লক্ষ্য করে তার রেডমি নোট ৭ প্রো ফোনটিতে আগুন ধরে গেছে। যদিও এই ঘটনায় তার শারীরিক কোনো ক্ষতি হয়নি। এদিকে শাওমির তরফে বলা হয়েছে আগুন বাহ্যিক কোনো কারণে লেগেছে। তারা ফোনকে অনেক পরীক্ষা করার পরই বাজারে আনে। ফলে তাদের ফোনে কোনো সমস্যা ছিলোনা।
কেন ব্লাস্ট করে ফোন ?
উৎপাদনগত ত্রুটি :
উৎপাদনগত ত্রুটি স্মার্টফোন ব্লাস্ট করার প্রধান কারণ। স্মার্টফোনের শক্তি যোগায় লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি। ফলে এটিকে সঠিকভাবে পরীক্ষা করে তবেই ফোনে ব্যবহার করা উচিত। অ্যাসেমব্লি লাইনে কোনো ভুল উপাদান দেওয়া হয়ে থাকলে ব্যাটারিকে ত্রুটিযুক্ত করে তোলে। যার ফলে ফোন ব্লাস্ট করতে পারে।
ব্যাটারিতে ফিজিক্যাল ড্যামেজ :
ব্যাটারির বর্তমান অবস্থা ফোন ব্লাস্টের কারণ হতে পারে। আমাদের হাত থেকে যখন ফোন পড়ে যায়, তখন ব্যাটারির অভ্যন্তরীণ যান্ত্রিক বা রাসায়নিক কাঠামোর পরিবর্তন হতে পারে। যার ফলে শর্ট সার্কিট, ওভারহিটিং প্রভৃতি সমস্যা দেখা দেয়। তাই যখন আপনার মনে হবে ব্যাটারি খারাপ হয়ে যাচ্ছে বা গেছে সেইমাত্র বদলে ফেলুন।
বাজার চলতি চার্জার :
ফোনে আগুন লাগার অন্যতম আরেকটি কারণ হলো বাজার চলতি চার্জার ব্যবহার করা। যেহেতু থার্ড পার্ট চার্জারগুলো আপনার ফোনের স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী আসেনা, তাই এর দ্বারা চার্জ দিলে ফোনে সঠিকমাত্রায় পাওয়ার আসেনা। যার কারণে ফোন গরম হয়ে ব্লাস্ট হতে পারে।
সারারাত চার্জে বসিয়ে রাখা :
স্মার্টফোনকে কখনও সারারাত চার্জে লাগিয়ে রাখবেন না। যদিও এটি আমরা সবাই প্রায় করি। এটি না তো শুধু ফোনকে ওভারহিট করে এছাড়াও ব্যাটারিতেও প্রভাব ফেলে। পরবর্তীতে এই কারণেই ফোন ব্লাস্ট হতে পারে।
প্রসেসরের উপর চাপ পড়লে :
ফোন গরম হওয়ার পিছনে প্রসেসরের হাত থাকে। হাই গ্রাফিক্সের কোনো গেম খেলার ফলে প্রসেসরের উপর চাপ পড়ে। যার কারণে ফোন গরম হয়ে আগুন ধরে যেতে পারে। সেকারণে বাজেট ফোনে কখনোই হাই গ্রাফিক্সের গেম খেলা উচিত নয়।
ফোনকে রৌদ্রে রাখবেন না :
আপনি যদি দীর্ঘক্ষণ ফোনকে রোদে রাখেন তবে আপনার ফোন গরম হতে পারে। একটি পরীক্ষায় দেখা গেছে ফোনের স্ক্রিনে দীর্ঘক্ষণ সূর্যের আলো পড়লে ফোন গরম হয়। এরজন্য আপনি বাইরে বার হলে ফোনটিকে ব্যবহার না করলে ব্যাগের মধ্যে রাখুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here