জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের ডুপ্লিকেট প্রোডাক্ট আকছার বাজারে ঘোরাঘুরি করে। এবার এই সমস্যার সম্মুখীন চীনা স্মার্টফোন কোম্পানি Xiaomi ও। বাধ্য হয়ে কোম্পানিকে ছুটতে হয়েছিল দিল্লী পুলিশের কাছে। এবিষয়ে শাওমি কিছুদিন আগে কারোল বাঘ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিল। এরপর দিল্লি পুলিশের দল ও শাওমির প্রতিনিধিরা স্থানীয় গাফফার মার্কেটের কয়েকটি দোকানে অভিযান চালায়। আর সেখানে গিয়ে যা দেখা গেছে তাতে চক্ষু চড়ক গাছ সবার। সেখানকার চারটি দোকান থেকে ২,০০০ এর বেশি শাওমির ডুপ্লিকেট প্রোডাক্ট পাওয়া গেছে, যার মূল্য প্রায় ১৩ লক্ষ টাকা।
কোম্পানি এক বিবৃতিতে বলেছে,’ অভিযানে ২,০০০ হাজারেরও বেশি জাল প্রোডাক্ট আটক করা হয়েছে। এরমধ্যে এমন অনেক প্রোডাক্ট আছে যেগুলো ভারতে লঞ্চ পর্যন্ত হয়নি। এই প্রোডাক্টগুলির মধ্যে রয়েছে এমআই পাওয়ারব্যাঙ্ক, এমআই নেকব্যান্ডস, এমআই ট্র্যাভেল অ্যাডাপ্টার উইথ ক্যাবল, এমআই ইয়ারফোন বেসিক উইথ মাইক, এমআই ওয়্যারলেস হেডসেটস, রেডমি এয়ারডটস, এমআই টু-ইন -১ ইউএসবি কেবল।
অনুমোদিত স্টোর থেকে প্রোডাক্ট কেনার আর্জি :
নকল প্রোডাক্ট বিক্রির জন্য পুলিশ ওই চার দোকান মালিককে গ্রেপ্তার করেছে। শাওমি জানিয়েছে যে, উদ্ধার করা নকল প্রোডাক্টের দাম প্রায় ১৩ লক্ষ টাকা। গ্রেপ্তার হওয়া চার দোকান-মালিক বলছেন যে, তারা বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে এই জাতীয় প্রোডাক্টের ব্যবসা করছিলেন। এদিকে বাজারে নকল প্রোডাক্ট চলে আসায় কোম্পানি তাদের গ্রাহকদের শাওমি অনুমোদিত স্টোর থেকে কেনাকাটা করার অনুরোধ জানিয়েছে।
এর আগেও ঘটেছে একই ঘটনা :
আপনাকে জানিয়ে রাখি, এর আগেও সেপ্টেম্বরে দিল্লি পুলিশ চাইনিজ ব্র্যান্ড ভিভোর অনেক ভুয়া স্মার্টফোন এবং অ্যাকসেসরিজ উদ্ধার করেছিল।  সেই সময় ছয় হাজারেরও বেশি নকল ভিভো প্রোডাক্ট আটক করা হয়েছিল এবং অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। দিল্লীর গাফফার বাজার এজাতীয় নকল প্রোডাক্টের জন্য কুখ্যাত এবং আগে নকল আইফোন, স্পিকার এবং হেডফোন এখান থেকে আটক করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here