গত অক্টোবর থেকে চরম আর্থিক সংকটে ভুগছে টেলিকম সেক্টর। যার শুরুটা হয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের একটি রায়ের পর, যেখানে সর্বোচ্চ আদালত ভোডাফোন-আইডিয়া ও এয়ারটেলকে AGR (এডজাস্টেড গ্রস রেভিনিউ) বাবদ ৯০,০০০ কোটি টাকা সরকারকে মেটানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছিলো। এই রায়ে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ভোডাফোন-আইডিয়া, কারণ ৯০,০০০ কোটির মধ্যে দেশের তৃতীয় বৃহত্তম এই টেলিকম কোম্পানির বকেয়ার পরিমান প্রায় ৫৩,০০০ কোটি টাকা। যারপরে দেশজুড়ে খবর রটে ভোডাফোন-আইডিয়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এমনকি ভোডাফোন সিইও ও ভারতে আর বিনিয়োগ করতে আগ্রহী নন বলে জানান।
এবিষয়ে গত শুক্রবার হিন্দুস্থান লিডারশিপ সামিট ২০১৯ এ যোগ দেওয়া কোম্পানির চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা-র কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি পরিষ্কার বলে দেন, সরকার সাহায্য না করলে তাদের পক্ষে ব্যবসা চালিয়ে যাওয়া আর সম্ভব নয়। প্রসঙ্গত সরকার কোম্পানিগুলোকে বকেয়া মেটানোর জন্য ২ বছর অতিরিক্ত সময় দিয়েছে। যদিও মঙ্গলম বিড়লার ভাষায় তারা সরকার থেকে সময় নয়, বকেয়া ছাড়ের অনুরোধ করছে।
সরকার সাহায্য না করলে বন্ধ হয়ে যাবে ভোডাফোন-আইডিয়া : 
২০১৬ সালে মার্কেটে জিও প্রবেশের পর অন্যান্য টেলিকম কোম্পানি বেকায়দায় পড়ে যায়। জিও-র সাথে পাল্লা দিতে গিয়ে ভোডাফোন, এয়ারটেল ও সবচেয়ে সস্তায় ডেটা অফার করতে শুরু করে। এরপর ভোডাফোন ও আইডিয়া সিধান্ত নেয় একসাথে ব্যবসা করার জন্য। যদিও মার্জ হয়েও কোম্পানি লাভের রাস্তায় ফিরতে পারেনি। এমনিতেই কোম্পানির মাথার উপর ১.১৭ লাখ কোটি টাকার ঋণের বোঝা ঝুলছে। তার উপর সুপ্রিম কোর্টের AGR এর বকেয়া মিটানোর নির্দেশ, ভোডাফোন-আইডিয়াকে আরও বেকায়দায় ফেলে।
কোম্পানির চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লাকে যখন প্রশ্ন করা হয় আর কোম্পানি ভারতে বিনোয়োগ করতে আগ্রহী কিনা, তখন তিনি জানান ‘ খারাপ হচ্ছে জেনেও বিনিয়োগের কোনো মানে হয়না। এটি আমাদের জন্য গল্পের সমাপ্তি হবে। আমরা ব্যবসা বন্ধ করব।’ যদিও শুধু ভোডাফোন আইডিয়া নয়, এয়ারটেলকেও স্পেকট্রাম ব্যবহারের ফি, লাইসেন্স ফি, ইন্টারেস্ট, পেনাল্টি প্রভৃতি মিলিয়ে ১.৪৭ লাখ কোটি টাকা দিতে হবে।
সরকার থেকে আর্থিক সাহায্য চাওয়া হয়েছে :
সরকারের কাছ থেকে ত্রাণ পাওয়ার প্রয়াসে, এয়ারটেল এবং ভোডাফোন আইডিয়া উভয়ই সুপ্রীম কোর্টে একটি রিভিউ পিটিশন দায়ের করেছে। কোর্টকে অনুরোধ করা হয়েছে যাতে বকেয়ার পরিমান পুনর্বিবেচনা করা হয়। আপনাকে জানিয়ে রাখি ইন্টারেস্ট ও পেনাল্টি যদি বাদ দিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে বকেয়ার পরিমান অর্ধেক কমে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here