দেশে দ্রুত বাড়ছে অপরাধের সংখ্যা। পরপর ঘটে যাওয়া বেশ কয়েকটি ঘটনা আমাদের জন্য গভীর উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেছে। কিন্তু পুলিশ ও যে হাত গুটিয়ে বসে নেই তারই বার্তা দিলো কলকাতা পুলিশ। গত শনিবার কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা জানিয়েছেন, অপরাধ দমনে তারা ৩,০০০ টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসিয়েছে। এই ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো অত্যাধুনিক হাই টেক ডিভাইস, যেগুলো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ফিচারযুক্ত।
কিভাবে অপরাধীদের ধরতে চাইছে কলকাতা পুলিশ :
অনুজ শর্মা জানিয়েছেন তারা অপরাধ দমনে আরও বেশি সংখ্যক আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও ফেস রিকগনিশন ফিচার যুক্ত হাই টেক ক্যামেরা ব্যবহার করবেন। কারণ তাদের কাছে যে ডেটা থাকে, তার সাথে এই ক্যামেরাগুলো থেকে ডেটা সংগ্রহ করা গেলে, দুটো ডেটা কে মিলিয়ে তড়িঘড়ি অপরাধীকে সনাক্ত করা যাবে। ঠিক যেভাবে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দক্ষিণ কলকাতার পঞ্চ শায়রে ঘটে যাওয়া সম্প্রতি যৌন নিপীড়ন মামলার কিনারা করা হয়েছে।
পুলিশ কমিশনার আরও বলেছেন, এই জাতীয় ক্যামেরা স্থাপনের ফলে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িতদের ধরা সহজ হয়ে উঠবে। কারণ এখনকার দিনে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রযুক্তি ব্যবহার করে অপরাধীদের সনাক্ত করছে। এই ক্যামেরাগুলোর বিশেষ দিক হলো ফেসিয়াল রিকগনিশন ( মানুষের মুখেকে সনাক্তকরা) ফিচার। চীনেও এই ক্যামেরার দ্রুত ব্যবহার বাড়ছে।
এরআগেও আমরা পাঞ্জাব, উত্তরাখন্ড, উত্তর প্রদেশ, তেলেঙ্গানা প্রভৃতি রাজ্যের পুলিশকে দেখেছিলাম অপরাধীদের ধরতে টেকনোলজির সাহায্য নিতে। পাঞ্জাবের আ্যসিস্ট্যান্ট ইন্সপেক্টর গুরমিত সিং চৌহান জানিয়েছিলেন, তারা এবার থেকে অপরাধীদের ধরতে একটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করবে । এই অ্যাপ্লিকেশনটির নাম পাইন (PINE) যার পুরো কথা হলো (পোলিশ ইন্টেলিজেন্স নিউজ এক্সট্র্যাক্টর ) । এটি তৈরি করেছে গুরগাঁও এর একটি আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স কোম্পানি। এটি কোনো বিষয় নিয়ে সেটিকে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে পর্যবেক্ষণ করতে পারবে।
তথ্যসূত্র : এক্সপ্রেস কম্পিউটার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here