Whatsapp ব্যবহার একজন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তার জন্য যে বিপদ ডেকে আনবে তা হয়তো তিনি কল্পনাও করতে পারেন নি। এই ঘটনা মহারাষ্ট্রের থানে শহরের। সেখানকার ৫৩ বছর বয়সী এক সেনা অফিসারকে হোয়াটসঅ্যাপ জালিয়াতির শিকার হয়ে ৪০,০০০ টাকা খোয়াতে হয়েছে। ওই প্রাক্তন সেনা আধিকারিক পুলিশ কে জানিয়েছেন, তিনি ৬ ডিসেম্বর হোয়াটসঅ্যাপে একটি মিসড কল পেয়েছিলেন। এরপর তিনি ঘুরিয়ে কল করার চেষ্টা করলে সেই নম্বরে আর কল যাচ্ছিলো না। বাধ্য হয়ে তিনি একটি মেসেজ পাঠান। এরপর ওই নম্বর থেকেও মেসেজের উত্তরে অপরিচিত ব্যক্তিটি নিজেকে তার বন্ধু কর্নেল হরপাল সিং বলে পরিচয় দেয়।
ওই অপরিচিত ব্যক্তিটি আরও বলেন যে, তিনি এবং তাঁর স্ত্রী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন এবং তার বোনের হার্টের চিকিৎসার জন্য তাঁর কিছু অর্থের প্রয়োজন। যেহেতু তারা আমেরিকায় আছেন তাই তারা টাকা ট্রান্সফার করতে পারছেন না। সেকারণে তিনি যদি তাদের কে কিছু টাকা ট্রান্সফার করেন তাহলে খুব উপকার হয় । এই বলে তিনি একটি অ্যাকাউন্ট নম্বর ও পাঠান।
সেনা অফিসার এই ভুয়ো মেসেজটি বিশ্বাস করে ওই অ্যাকাউন্ট নম্বরে প্রথমে ৪০,০০০ টাকা পাঠান। এরপর আবার তার কাছে ২০,০০০ টাকা চাওয়া হয়। দ্বিতীয়বার টাকা পাঠানোর আগে সেনা অফিসার কিছুটা সন্দেহের বশেই বন্ধুর পুরানো নম্বরে ফোন করেন এবং জানতে পারেন তাঁর বন্ধু আমেরিকাতে নয়, পাঞ্জাবের ফরিদকোটে আছেন এবং সে কোনো টাকা চায়নি। এরপর তিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
প্রতারণা থেকে কিভাবে বাঁচবেন :
কথা না বলে টাকা পাঠাবেন না :
Whatsapp এ কেউ টাকা চাইলে নিশ্চিত না হয়ে টাকা পাঠাবেন না। আগে তার সাথে ফোনে কথা বলুন এবং নিশ্চিত হয়ে তবেই টাকা ট্রান্সফার করুন।
অ্যাকাউন্ট নম্বর দেবেন না :
১ . সাইবার ক্রিমিনালরা সাধারণ মানুষের কাছে তাদের ব্যাংক ডিটেইলস শেয়ার করার অনুরোধ জানায়।
২ . তারপর জালিয়াতরা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে একটি কিউআর কোড পাঠায় যেটি মূলত একটি মানি রিসিভ কোড।
৩ . কোডটিকে স্ক্যান করে পিন দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা জালিয়াতের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পৌছে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here